শারমিন যাকে পেয়েছি বিলম্বে

শারমিন যাকে পেয়েছি বিলম্বেImage

“আমি আগেই বলে নিচ্ছি যে এই গল্পটি আমার নিজের লেখা না। আর গল্প লেখার মত অতটা বুদ্ধি এখনো আমার উর্বর মস্তেষ্কে গজায়নি। গল্পটা আমি পড়ি অন্য একটি চটি সাইটে এবং গল্পটা পড়ে আমার এতটাই ভালো লেগে গেল যে শেয়ার না করে পারলাম না। আশা করি আপনাদের ও ভালো লাগবে। আর গল্পের লেখক যদি এই সাইটে থেকে থাকেন তাহলে আমাকে মাফ করবেন আপনার অনুমতি ছাড়াই গল্পটি পোষ্ট করার জন্য”
– মনটা ভালো নাই
– কেন
– এমনি, কোথাও চলে যেতে ইচ্ছে হচ্ছে
-কোথায় যাবে
-সমুদ্র দেখতে
-কক্সবাজার?
-যাবেন?
-যাওয়া যায়, কিন্তু
-কিন্তু কি,
-তুমি আর আমি, আর কেউ নেই
-আর কে থাকবে, গেলে আমরা দুজনই যাবো
-কেউ দেখে ফেললে?
-এখান থেকে সাবধানে গেলেই হলো, ওখানে তো স্বাধীন।
-হোটেল বুকিং দেবো কিভাবে, আলাদা রুম দিতে হবে
-এখন আলাদাই দেন, পরে ওখানে গিয়ে দেখা যাবে
এভাবেই হঠাৎ কক্সবাজার যাবার পরিকল্পনা হয়ে গেল শারমিনের সাথে। শারমিন আমাকে মামা ডাকে, বন্ধুর ভাগ্নী। পাশের অফিসে চাকরী করে। আমাকে খুব পছন্দ করে। আমিও করি। ফোনালাপ হয় প্রায়ই। সেই করে প্রতিদিন। ভালোলাগার কথা বলে, কিন্তু ভালোবাসার কথা বলতে সাহস পায়নি এখনো। মামা ডাকে তো! আমি ওকে প্রথম যখন দেখেছি বন্ধুর বাসায় তখন সে স্কুলে পড়ে, ক্লাস টেনে বোধহয়। সেই দৃশ্যটা আমার এখনো চোখে ভাসে। সাদা একটা কামিজ পরনে লকলকে সদ্য যৌবনপ্রাপ্ত কিশোরী খোলা ছাদে উচ্ছল ছোটাছুটি করছে। সেই বয়সে মেয়ে অনেক দেখেছি, কিন্তু ওই মেয়েটা আমার চোখে পড়লো তার বুকে সদ্য জেগে ওঠা দুটি সুপারীর কারনে। কোন কোন মেয়ের এই জিনিসটা খুব ভালো পারে। তারা জানে তাদের দেহ সম্পদকে কীভাবে পুরুষের সামনে উপস্থাপন করতে হবে। কাঁচা বয়স থেকেই। প্রথম দেখাতেই মাথা এবং চনু দুটোর মধ্যেই টাং টাং করে আঘাত করতে থাকে দৃশ্যটা। এত টাইট, এত টাইট, এত গোল, এত খাড়া। ওড়না পরে নি, তার উপর কামিজটা এত টাইট কিশোরী স্তন দুটো সাদা কামিজ ভেদ করে সুস্পষ্টভাবে ফেটে বেরিয়ে আসতে চাইছে। ব্রা পরার বয়স হয়নি তখনো। শেমিজও আছে কিনা সন্দেহ। কাচা কাচা চিবিয়ে খেয়ে ফেলতে ইচ্ছে হয়েছিল। প্রেমট্রেম কিছু জাগেনি। শুধু কাম শুধুই কামভাব ছিল বেশ কয়েকদিন। হাত মেরে নিজেকে হালকা করার চেষ্টা করেছি। কিন্তু শারমিন ব্যাপারটা জানে না। সে আমাকে তখন আমলেই নেয়নি, নেয়ার মতো পরিবেশও ছিল না। তখন ওর বয়স ১৫ আর আমার বয়স ২২, এখন ওর বয়স ২৬ আমার বয়স ৩৩। এতদিন পর ওকে দেখে বোঝার চেষ্টা করলাম আগের কিছু অবশিষ্ট আছে কিনা। কিছু কিছু আছে কিন্তু সেই ফিগার আর নেই। যৌবন এমন এক জিনিস, সময়ের কাজ সময়ে না করলে পরে তার কোন মূল্য নেই। আশাকে, কুলসুমকে, শারমিনকে, ইপুকে যে চরম যৌবনোদ্ধত বয়সে দেখেছি, সেই বয়সে তাদের যৌবনকে কেউ হয়তো ভোগ করেনি, তাহলে সেই সৌন্দর্য পুরোটাই অপচয়। তাদের যখন বিয়ে হয়েছে তখন একেকজনের ফিগার নষ্ট হয়ে গেছে, দুধ ঝুলে গেছে। ফলে কারো কাজেই আসলো না। আমি সাহস করলে এদের সবাইকে তাদের চরম সময়ে ভোগ করতে পারতাম। যাইহোক এতদিন পর শারমিন যখন আমার প্রতি আকর্ষিত হলো তখন মনে মনে বলি, এলেই যদি এত দেরী করে এলে কেন। তখন পেলে কী দারুন ব্যাপারই না হতো।
এখনো শারমিনের সাথে খোলামেলা কোন কথা হয়নি। ইঙ্গিতে বোঝানো হয়। শারমিন প্রায়ই বলে, মামা আপনি খুব সুন্দর। আমিও বলি ওকে। এর বেশী আগাই না। মামা তো। বন্ধুরা জানলে কী মনে করে। কক্সবাজারের প্ল্যানটা সাহস করেই নিয়ে নিলাম। কারন ওকে খাওয়ার আর কোন সুযোগ এখানে মিলবে না। অফিসের পিকনিকের নাম দিয়ে কদিন ওখানে কাটিয়ে আসি। সেও বোধহয় মনে মনে তাই চায়, কিন্তু বুঝতে পারছি না। কারন সে যদি শুধু প্রেমে পড়ে তাহলে খাওয়া যাবে না।

 

http://adf.ly/SNCdm

This entry was posted in Uncategorized. Bookmark the permalink.

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s