মাসী

আমার বয়স তখন ১২ বা ১৩ হবে৷ ফরিদপুর থেকে জালালগড় না হলেও ৩৫ -৪০ কিলোমিটার তো হবেই ৷জালাল গড়ে বাবা কাজ করতেন কাপড়ের মিলে ৷ ছোট মাসি ফরিদপুরে থাকতেন ৷
এমনি ঝারখন্ডে এখনকার মত ভালো যাতায়াত ছিল না ৷ সকাল আর দুপুর মিলিয়ে মোট ৩ টিই বাস ছিল সারা দিনে ৷ খুব বদমাইশ ছিলাম বলেই দাদা বোর্ডিং এ ভর্তি করে দেন ৷ দাদা তখন BSF এর লেফটেনান্ট ৷ বোর্ডিং এর ছুটি তে পালা করে আমাদের ছোট মাসির বাড়িতে ছুটি কাটাতে যেতে হত ৷ মা সরকারী চাকরি করতেন তাই সময় সুযোগ হত না দেখেই সুনু দির সাথেই আমাদের পাঠিয়ে দিতেন ৷পাহাড়ে ঘেরা জায়গাটা আমাদের খুব ভালো লাগত ৷
৷ সুনন্দা মেসোর ছোট বোন ৷ আমাদের থেকে বিশেষ বড় ছিল না বছর ৫-৬ হবে ৷
দেখতে যেমন মিষ্টি গান তেমন গাইতে পারত ৷ খেলে আনন্দে কেটে যেত আমাদের কৈশোর ৷ মাসির নাম খুব আধুনিক ছিল ৷ মার থেকে ছোট মাসি ১৩ বছরের ছোট ছিলেন ৷ রোমা নাম হলেও সবাই মাসিকে রমা করেই ডাকত ৷ অনেক আদর করতেন আমাদের ৷ আর চূড়ান্ত রান্না ছিল হাতের ৷ তাই ফরিদপুরে আসলে ওনার হাতের লিচুর পুডিং , মোরব্বা , কই মাছের কালিয়া, আনারসের চাটনি খেয়ে মন ভরে যেত ৷ যা বানাতেন মুখে স্বাদ লেগে থাকত ৷ মেসো ব্যবসাই ছিলেন ৷ এর পর আমরা ব্যারাকপুরে চলে আসি বাবার বদলি হয় ৷ ছোটবেলার সোনালী দিন গুলো চোখে ভাসে ৷ আমরা সুনন্দা কে কোনদিন মাসি বলি নি ৷
সুনুদী করেই ডাকতাম ৷ বিহার থেকে ফিরে এসে সুনুদির সাথে বা বড় মাসির সাথে যোগাযোগ হারিয়েই গেছিল ৷ চিঠি ছাড়া কোনো যোগাযোগ থাকত না প্রায় ৷ আর আমাদের বাড়িতে ফোন অনেক পরেই এসেছিল ৷ বাবার বদলির ৪ বছর পরে মাও বদলি হয়ে চলে আসেন ৷ আমাদের ব্যস্ত ময় জীবন চলতে থাকে ৷ আসতে আসতে স্মৃতি ম্লান হতে থাকে ৷
স্কুল শেষ করে কলেজ শেষ করে, উনিভার্সিটি ছাড়িয়ে বেশ বড় হয়ে যাই গাছের মত ৷ মা বাবার বয়েস হয়েছে দুজনেই রিটায়ার করে দাদার আশ্রয় নিয়েছেন ৷ দাদার দুই ছেলেমেয়ে ৷ দাদা তার পরিবাব মা বাবা কে নিয়ে খুব খুশি ৷ আমি ছোট বলে আমার উপর দায়িত্ব কম ছিল ৷ বয়স ২৭ বিয়ে করলেই করা যায় কিন্তু বিয়ের দিকে তেমন টান ছিল না ৷ দাদা আম্বালা চলে যাওয়ার পর থেকেই আমি একটু বেশি বেপরোয়া হয়ে উঠলাম ৷ ভালো ব্যাঙ্কে উচু পোস্টে চাকরি করার সুবাদে পইসার অভাব হত না ৷
বছরে এক্দুবার করে মাবাবা এসে থাকলেও দাদার বাছাদের প্রতি তাদের টান থাকার কারণে আম্বালা ফিরে যেতেন ৷
মা চাইতেন আমরা সবাই এক সাথে থাকি কিন্তু তা সম্ভব হত না ৷ মোবাইল বা ফোনের দৌলতে এখন কোনো দুরত্ব দূর ছিল না ৷ মনীষা কে আমার ভালো লাগত কিন্তু বউ হিসাবে ওকে ভাবি নি ৷
মাঝে মাঝেই আমার ফ্ল্যাটে চলে আস্ত রবিবার ৷ আর আমার রবিবার ভীষণ ব্যভিচারী রবিবারে পরিনত হত ৷ সম্ভোগ বা বিকৃত যৌন খেলা খেলেই আমার সময় কেটে যেত ৷ মনীষা সেরকমই মেয়ে ছিল ৷ ইংরেজি স্কুলে পড়ার দৌলতে সব কিছুই রপ্ত করে নিয়েছিল অল্প বয়েসে ৷ মুখ দিয়ে চুসে দেওয়ায় হয়ত কোনো পেয়েই পাল্লা দিতে পারবে না ৷ মনীষা আমাকে বিয়ে করবে বা আমাকে ভালবাসে এমন সম্পর্ক আমার আর ওর ছিল না ৷ সোজা কোথায় একে অপরের পরিপূরক ছিলাম ৷ আর অফিসে ওহ আমার সাবঅর্ডিনেট ৷ দিন গুলো খাপছাড়া কাটলেও বুঝতে পেরেছিলাম জীবনে ভোগের মানে কি ৷ কিছুদিন পর জানতে পারলাম দাদা দিল্লি তেই থাকবে আর সেখানে বাড়ি কিনছে

http://adf.ly/SlwBnImage

This entry was posted in Uncategorized. Bookmark the permalink.

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s