বাবার মৃত্যুর পর

আমার বাবার মৃত্যু হয়াছিল একটি ট্রেন দুর্ঘটনাতে। বাবা একটি কেমিক্যাল কোম্পানি তে মার্কেটিং ম্যানেজার এর কাজ করতেন। বাবার ছোটব্যালাকার বন্ধু ছিলেন মন্তু কাকু। উনি প্রায়ই আমাদের বাড়িতে আসতেন। ওনার বউ এর সাথে বিবাহ বিচ্ছেদ হয়ে গিয়েছিল। বাচ্চা টাচ্চা ও ছিলোনা। রবিবার বা অন্য ছুটির দিনে উনি আমাদের বাড়িতে চলে আসতেন ও দুপুরের খাবার আমাদের সাথেই খেতেন। বাবার থেকে উনি বয়স এ বছর দুই এর ছোট হলেও বাবা মন্তু কাকুকে খুব ভালবাসতেন। মন্তু কাকু কে দেখতে খুব সিদা সাদা হলেও আসলে উনি একজন এম ডি ডাক্তার ছিলেন। যদিও ওঁর পসার তেমন ভাল ছিলোনা আর উনি পসার জমানোর তেমন চেষ্টা ও করতেন না। যাই হোক আমাদের ছোট খাট অসুখ বিসুখ এ আমরা কোন দিন ডাক্তার দ্যাখাই নি। যে দিন সেই ট্রেন দুর্ঘটনার খবর এল সেদিন মা খুব ভেঙ্গে পরে ছিল। মন্তু কাকু তাড়াতাড়ি চেম্বার থেকে আমাদের বাড়ি চলে এলেন আর তারপর দেহ আনা থেকে শুরু করে সৎকার পযর্ন্ত বাকি সমস্ত কাজ একাই সামলালেন। যদিও আমার ছোট কাকা এসে ছিলেন কিন্তু ওনার সঙ্গে আমাদের সম্পর্ক তেমন ভাল ছিল না বলে উনি একটু ছাড়া ছাড়া ভাব দেখালেন। যাই হোক মন্তু কাকু সব সামলে নিলেন আর তারপর থেকে কএক দিন টেলিফোন এ নিয়মিত আমাদের খোঁজ খবর নিতে লাগলেন যে আমাদের কোন অসুবিধা হোচ্ছে কিনা। যাই হোক বাবা মারা যাবার এক মাস পর মন্তু কাকু এক দিন মা কে নিয়ে বাবার অফিস এ গেলেন বাবার পাওনা টাকা কড়ি সব বুঝে নিতে। সেদিন আবার আমার শরীরটা খারাপ ছিল বলে স্কুল এ যাইনি। মন্তু কাকু আর মা সকালে বেড়িয়ে ফিরল সেই বিকেল এর দিকে। ওরা বাড়ি ফেরার পর হটাত খুব জোর বৃষ্টি শুরু হল। মা মন্তু কাকু কে বললেন রাতের খাবার টা এখানেই খাওয়ার জন্য। মন্তু কাকু রাজি হলেন। কিন্তু রাতের দিকে বৃষ্টির সাথে প্রবল ঝড় শুরু হল আর সেই সঙ্গে কারেন্টটাও চলে গেল। আমি দু তলার ঘরে ঘুমিয়ে পরে ছিলাম। হটাত ঘুম ভেঙ্গে যেতে কি মনে করে আস্তে আস্তে নিচে নেবে এলাম। দেখি বাইরের ঘর থেকে কান্নার আওয়াজ পাওয়া যাচ্ছে। চুপি চুপি ঘরে উঁকি মেরে দেখি মা বাইরের ঘরের সোফাতে বসে খুব কান্নাকাটি করছে আর মন্তু কাকু মা কে সান্তনা দেবার চেষ্টা করছে। মা বাবার সম্পর্কে নানা পুরনো কথা মনে করে করে বলছে আর কান্নাকাটি করছে। কাঁদতে কাঁদতে এক বার মা মন্তু কাকুর বুকে মাথা রাখল আর ফুঁপিয়ে ফুঁপিয়ে কাঁদতে শুরু করল। মন্তু কাকু মার মাথাতে আর পিঠে হাত বুলিয়ে দিতে লাগল। তারপর হটাত দেখি মন্তু কাকু কখন যেন সান্তনা দিতে দিতে মা কে নিজের বুকের সাথে একবারে জড়িয়ে ধরেছে। মা ও কাঁদতে কাঁদতে মন্তু কাকুর বুকে মুখ ঘষছে। মা বুকে মুখ ঘষছে দেখে মন্তু কাকু ও জোরে জোরে মার মাথাতে আর পিঠে হাত বোলাতে শুরু করল। মা কিন্তু কেঁদেই চলছিল আর মন্তু কাকুর বুকে মুখ ঘসেই চলছিল। মন্তু কাকু হটাত মার কপালে আর মাথার চাঁদিতে ছোট ছোট চুমু খেতে শুরু করল। আমি অবাক হয়ে দেখলাম মা ব্যাপারটা পাত্তাই দিলনা। মা মন্তু কাকু কে কাঁদতে কাঁদতে বলছিল “আমি ওকে ছাড়া এত বড় জীবনটা কাটাব কি করে…আমার এই সাজানো গোছান সংসারটা ফাঁকা হয়ে গেল”। মন্তু কাকু মা কে বলছিল “জানি যা হয়েছে তা মেনে নেওয়া খুব মুস্কিল তোমার পক্ষে, কিন্তু তুমি ভেবনা, ভগবান চাইলে সব ঠিক হয়ে যাবে”। এর কিছুক্ষণ

http://adf.ly/?id=287043

Link | This entry was posted in Uncategorized. Bookmark the permalink.

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s