আমি ও দেবর

আমি ও দেবর
আমার স্বামী মনির একদিন এক লোককে আমাদের বাড়ীতে নিয়ে আসে। বয়স আনুমানিক আমার স্বামীরই সমান হবে, বা দুয়েক বছর কম ও হতে পারে। ফর্সা রং, খুব মিষ্টি চেহারা, লম্বায় পাচ ফুট সাত ইঞ্চি, প্রশস্ত বক্ষ, গাঢ় কোকড়ানো চুল, কোমরের ব্যাস হবে ছত্রিশ, সব মিলিয়ে এত সুন্দর যুবক যে , যে কোন নারীকে মুহুর্তেই আকর্ষন করতে সক্ষম। এসেই আমাকেই পা ছুয়ে কদম বুচি করে দোয়া নিল, তার ব্যবহারে আমি যথেষ্ট খুশি হলাম। তারপর আমি তার পরিচয় জানতে চাইলাম। আমার স্বামি বলল, এ আমার ধর্মের ভাই। বিগত কয়েক মাস আগে আমাকে ধর্মের ভাই ডেকেছে, নাম মহিন , বাড়ীতে আনব আনব করে এতদিন আনতে পারিনি, আজ নিয়ে আসলাম, আজ থেকে তোমার দেবর, আমার ছোট ভাই, আপন দেবর হিসাবে জানবে। মহিন বলল, না না না আমি দেবর হব কেন ? আমি ও আপনার ভাই এবং ভাইয়াকে যে ভাবে ভাই বলে ডাকি আপনাকে ঠিক সে ভাবে আপু বলে ডাকব। তার কথায় আমার স্বামী বাধ সাধল, বলল,
না না তা কি করে হয় ? আমার স্ত্রী কে আপু ডাকলে আমিত তোমার দুলা ভাই হয়ে যাব না?
আমরা তিনজনেই সমস্বরে হেসে উঠলাম।
মহিন আমাকে লক্ষ্য করে বলল, আপনি যেটা ডাকতে বলেন আমি সেটাই ডাকব।
আমি খিল খিল হেসে উঠে বললাম, আমাকে ভাবীই বলে ই ডাকবে।
সে প্রথম পরিচয়ের দিন হতে আমাকে ভাবীই বলে ডাক্তে শুরু করল, আর আমি ও দেবর হিসাবে তাকে দেখতে লাগলাম।
রাতে তিঞ্জনেই গল্প করে কাটালাম, মহিন কিভাবে আমার স্বামীকে ভাই ডাকল সেই গল্প, আর মহিনের জীবন কাহীনি শুনতে শুনতে রাত তিনটা বেজে গেল। মহিনের মা বাবা বাংলাদেশী অষ্ট্রলিয়ান নাগরিক, মহিনের জম্মটাই অষ্ট্রেলিয়াতে , বাংলাদেশে তার হাজারো আত্বীয় স্বজন থাকলে ও মহিন কাঊকে চেনেনা। মহিনের যখন বিশ তখন একবার চিটাগাং এ এসেছিল তাই চিটাগাং এর বাড়ি খানা মহিন কাউকে চিনার আগেই আবার মা বাবার সাথে অষ্ট্রেলিয়াতে পাড়ি জমায়। অষ্ট্রেলিয়াতে মা বাবা দুজনে এক সড়ক দুর্ঘটনায় মারা গেলে এই প্রথম বার দেশে আসে। দেশে ভাড়া দেয়ের উদ্দেশ্যে সে কয়েক কোটি টাকা খরচ করে তিন চার টি আবাসিক বিল্ডিং করছে, আমার স্বামী মনির সে বিল্ডিং গুলির ইলেক্ট্রিকের কাজ কন্ট্রাক্ট নেয়ার সুবাদে পরিচয় এবং মনের এক আকর্ষনে ধর্মের ভায় ডাকা। এমন একজন কোটিপতি ছেলে ,তাছাড়া অল্প বয়স্ক অবিবাহিত যুবক একজন ইলেক্ট্রিকের কন্ট্রাক্টরকে মামুলী কারনে ধর্মের ভাই ডেকেছে আমার ভাবতেই আশ্বর্য লাগল। যাক এটা তার মনের আবেগ ,আমার সেটা ভাবার দরকার নেই মনে করলাম।

Link | This entry was posted in Uncategorized. Bookmark the permalink.

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s