আমি যখন গাইনী ডাক্তার

আমি যখন গাইনী ডাক্তার

একদিন ইমার্জেন্সী ডিউটি করছে সুবীর, সাথে আমি। হঠাৎ একটা কেস এলো। এক গ্রাম্য নববধুকে গরুতে ঢিস দিয়েছে। বউটা গরুকে খাবার দিতে গিয়েছিল, গরুটা মাথা নিচু করে খেতে খেতে আচমকা মাথা তুলতে গেছে আর কাছে দাঁড়ানো বউটার ভুদার কিনার দিয়ে শিং ঢুকে গেছে। বউটার শ্বাশুড়ি বউটাকে নিয়ে এসেছে, রক্তে পুরো শাড়ি মাখামাখি এবং তখনও পা বেয়ে রক্ত গড়াচ্ছে। দ্রুত রক্ত বন্ধ না করলে বউটা মারাও যেতে পারে। এসব ক্ষেত্রে দ্রুত ক্ষত পরিষ্কার করে ছোট হলে ব্যান্ডেজ আর বড় হলে সেলাই দিয়ে ব্যান্ডেজ করতে হয়। সুবীর বউটার শ্বাশুড়ির কাছে জানতে চাইলো, কোথায় জখম হয়েছে? গ্রাম্য অশিক্ষিত বুড়ি বললো যে সে দেখে নাই, তয় রানে হতে পারে।
সুবীর বউটার জখমের স্থান আর ক্ষতের অবস্থা দেখার জন্য যেই না শাড়ি উঠাতে গেছে শ্বাশুড়ি মহিলা হাঁ হাঁ করে উঠে বললো, “সে কি বেআব্রু করতাছেন ক্যান?” কিছুতেই সে হাঁটুর উপরে শাড়ি উঠাতে দেবে না। সুবীর আমাকে আড়ালে ডেকে নিয়ে বললো, “মনিদা, মালডা দ্যাখছেন, এক্কেরে কচি, কি নাদুসনুদুস আর ফর্সা, এই মালের ভুদাডা একটু না দেখলে ভাই সারা জীবন আফসোস করতে হবে”। আমিও ওর কথায় সায় দিলাম, যে করেই হোক ভুদাটা একটু দেখতেই হবে, পারলে একটু হাতাতে হবে, কিন্তু কিভাবে? শ্বাশুড়ি বুড়ি যেভাবে পাহাড়া দিচ্ছে! আমি বললাম, “চাচীমা, আপনের ছেলেরে আনেন নাই ক্যান?” বুড়ি বললো, “আমার পুলাডা একডা নাদান, হাবাগুবা, হ্যায় আইসে কি হরবো?”
আমরা পরামর্শ করে একটা বুদ্ধি বের করলাম। সত্যি মেয়েটা একেবারে কচি, খুব জোর ১৫/১৬ বয়স, বেশ হৃষ্টপুষ্ট শরীর, এরকম মেয়েদের ভুদা কোলা ব্যাঙের মত গাব্দাগোব্দা হয়। সুবীর শ্বাশুড়িকে বললো, “চাচিমা, আপনে একটু ঐখানে দাঁড়ান, আমি একটু আপনার বৌমার সাথে কথা বলবো”। শ্বাশুড়ি রাজি হয়ে একটু দুরে সরে গেল বটে কিন্ত তীক্ষ্ণ দৃষ্টি রাখলো আমাদের দিকে। সুবীর বউটার কাছে জিজ্ঞেস করলো আঘাতটা কোথায়? বউটা ব্যাথা সহ্য করতে করতে মুখচোখ বিকৃত করে জানালো, “কুঁচকিতে”। তখন সুবীর বললো, “দেখো, তোমার ক্ষত পরিষ্কার করে ব্যান্ডেজ বাঁধতে হবে, প্রয়োজন হলে সেলাই দেয়া লাগতে পারে। তোমার যে জায়গায় আঘাত সেখানে দেখতে দিতে হবে, তুমি কি রাজী?”
মেয়েটা তখন ব্যাথায় কাতড়াচ্ছে, সে এমন একটা অবস্থায় আছে যে সে যে কোন কিছু করতে রাজি এবং সত্যি রাজি হয়ে গেল তবে জানতে চাইলো ব্যাথা লাগবে কিনা। সুবীর জানালো যে ঐ জায়গায় অবশ করার ইঞ্জেকশন দেওয়া হবে, ফলে সে কিছু টেরই পাবে না। মেয়েটা সানন্দে রাজি হয়ে গেল। এবারে শ্বাশুড়ি বুড়িকে ডেকে সুবীর বললো যে কাপড় তুলতে হবে না, তবে শাড়িটা খুলতে হবে, পেটিকোট থাকুক। বুড়ি রাজি হলো। সুবীর একটা চান্স নিল, ভাগ্যে লেগে যাওয়ার সম্ভাবনা ৯০%। বুড়িকে বললো, “আপনি রক্ত টক্ত দেখে ভয় পান না তো?” বুড়ি বলল

Link | This entry was posted in Uncategorized. Bookmark the permalink.

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s