গোপা কাকিমা-7

গোপা কাকিমা-7

আচ্ছা তাড়াতাড়ি টাকা টা নিয়ে রেল স্টেসনে চলে এস আমি অপেখ্যা করছি ৷
স্নান করে মাকে বলে কলকাতায় যেতে হবে তাই রেডি হলাম৷ মনে ভীষণ ভয়৷ কোথায় নিয়ে যাবে ওরা আমায় , তাছাড়া ট্রেন-এই বা কেন ? কাকিমাকে কি শহরের বাইরে রেখে দিয়েছে ?? আদর্শের ব্যাখ্যা দিয়ে নিজেকে বেঁধে রাখার মত ছেলে আমি নয় ৷ কাকিমাকে আমি যতই লালসার দৃষ্টি দিয়ে দেখি না কেন এখানে একজন মানুষের জীবনের প্রশ্ন ৷
আমি সময় মত ফিরে যাব , আমার চিন্তা কর না ৷ দু তিন দিন সময় লাগলেও লাগতে পারে ৷
রাতে যথা রীতি সব দিক সামলে একটা ছোট স্পোর্টস ব্যাগ এ সব গুছিয়ে অর্ঘ্যদার বাড়ির দিকে রওনা দিলাম ৷ একটা টর্চ আর একটা চত ফল কাটার চুরি আমি সব সময় আমার কাছে রাখি ৷ অর্ঘ্যদা আমায় দেখে” কিরে আয় আয় “
আমি বললাম “সময় নেই এখুনি ট্রেন ধরব একটু কথা আছে তোমার ঘরে চল ” ৷
“শোনো আমি কলকাতায় যাচ্ছি না ” বলে চিঠি দেখালাম ৷ “তাহলে তুই যাচ্ছিস ??” অর্ঘ্যদা জিজ্ঞাসা করলো হাথ ধরে ৷
শোনো আমার উপায় নেই, সুধু তোমায় জানিয়ে যাচ্ছি যদি কোনো বিপদ হয় তাহলে তোমার জানা রইলো আমি কোথায় যাচ্ছি ১ আর সময় মত আমি তোমায় ফোনে যোগাযোগ রাখব আর আর্জেন্ট দরকার হলে ডাকব , আমায় মানা কর না “
অর্ঘ্যদা আরো ৫০০ টাকা আমার হাথে গুঁজে দিয়ে আমার কাঁধ টিপে ধরল , সাবধানে যাস ৷
দেরী করার উপায় নেই ৷ ট্রেন আসলো বলে , আমার AC -২ তে টিকিট , ট্রেন এর সাথে এক গাদা হকার , যাই হোক এখানে ট্রেন ১০ মিনিট দাঁড়ায় ৷ আমি বুদ্ধি খাটিয়ে ট্রেনে না চড়ে প্লাটফর্মের এক কোনে চুপি চুপি AC -২ এর কামরার দিকে নজর রাখছি ৷ কাওকে দেখা গেল না ৷ এদিকে সিগনাল হয়ে গেছে ৷ এখুনি ট্রেন ছাড়বে ৷ সিয়াল্দা থেকে এই তিস্তা তোর্সা গাড়ি টা সব সময় বোঝাই হয়ে আসে ৷ তাই বেকার দাঁড়িয়ে না থেকে কামরায় লাফ দিয়ে উঠে পরলাম ৷ আমার কাছে প্রায় ১৪০০ টাকা আছে ৷ আমার বার্থ ২৩ , চুপ করে গিয়ে সেখানে বসতেই ট্রেন ছেড়ে দিল ৷ ভয়ে আছি না জানি কি হয় ৷ ১২ নম্বর সিতে এসে বসলাম চিঠির মত ৷ কেউ নেই ৷ বেশ খালি কামরাটা , দু একজন সম্ভার্ন্ত মহিলার আওয়াজ শোনা গেল ৷ অনেক দুরে ৷ আমার সামনে একজন বয়স্কা বুড়ি মহিলা বসে আছেন , তাকে দেখা যাচ্ছে না সাইড দিয়ে ৷ ট্রেন বেশ স্পিডেই দৌড়াচ্ছে ৷ আমি অস্থির হয়ে বসে আছি হরেনের দলের কারোর সাথে দেখা করে বিষয় টা জানার জন্য ৷
মিনিট ১৫ পর একজন বয়স্ক , থুরথুরে বুড়ো আমার কাছে এসে আমায় দেখে হে হে হে হে করে হেঁসে চলে গেল ৷ আমি নিশ্চিন্ত হলাম যে ওদের এটা ইনফরমার ৷ দুটো মোটা গুন্ডা মার্কা লোক এসে আমায় পিছনের দিকে তাকিয়ে বলল ” ধেনো ডাকছে”! আমি পিছনে তাকাতেই ঘাড়ে অসঝ্য একটা পিন ফোটানো ব্যথা অনুভব করা মাত্র চোখ দুটো ঘুমের আবেশে জড়িয়ে গেল ৷ ঘুম ভাঙতেই দেখি চিলে কোঠার একটা এক চিলতে ঘর ৷ কিছুই নেই ঘরে একটা বিছানা আর একটা টিনের বাক্স ছাড়া ৷ বাক্স দেখে মনে হলো এখানেই পেছাব করার জায়গা ৷ হাথ দুটো সক্ত করে বাঁধা ৷চীন চীন করে হাথে যন্ত্রণা হচ্ছে ৷ তল পেট ফেটে যাবে এবার মনে হয় ৷ টিনের বাক্স তে বসে প্যান্টের উপর দিয়ে পেছাব সেরে নিলাম ৷ প্যান্টের অনেকটাই ভিজে গেছে ৷ ঘুলঘুলির আলোয় ঘরটা ভরে আছে , মনে হয় ভর দুপুর বেলা ৷ একটা জানলা আছে পাশে ৷ কিন্তু বাইরে থেকে কাঠের বাটাম দিয়ে পেরেক সেঁটে বন্ধ করে রাখা ৷ ফাঁক ফোকর দিয়ে কিছুই দেখা যাচ্ছে না ৷ ভিসন খিদে পাচ্ছে ৷ এরা কোথায় আমাকে নিয়ে এসেছে বুঝতে পারছি না ৷ সন্ধ্যে হয়ে রাত নেমে আসলো কিন্তু কোথায় আছি কি হচ্ছে কিছু বোঝা যাচ্ছে না ৷ জল পিপাসায় বুকের ছাতি ফেটে যাচ্ছে ৷ দরজায় ধাক্কা দিয়ে বাংলায় দু একবার জল চাইলাম ৷ পাশেই বেশ কিছু হিন্দী ভাষী লোকেদের কথা শোনা যাচ্ছে ৷ জায়গা টা বেশ পয়সাওলা লোকেদের জায়গা বলে মনে হচ্ছে ৷ একটা লোক সেই গুন্ডা মার্কা লোক এসে দরজায় তালা খুলে , আমায় হাথ দিয়ে সরিয়ে টিনের বাক্স বের করে নিয়ে গেল , আর আরেকজন তাকে আমি চিনি না , সে এসে আমার ঘাড় ধরে টেনে হিচড়ে সিড়ি দিয়ে দোতলার একটা ঘরে নিয়ে আসলো ৷ বেশ বড় হল ঘর , প্রায় জনা ১২ লোক বসে আছে দেখে বেশ ভদ্রই মনে হচ্ছে ৷ সবার সামনে দামী মদের কাঁচের গ্লাস গোল গোল বসানো রয়েছে ৷ কেউ খাচ্ছে একটু একটু, কেউ খাচ্ছে না ৷
“কমলা বাই ইসে নাহেলা কে এক কাপরা পাহেনা দে মেরা য়ালা’ গুন্ডা টা আমাকে থেকে কমলা বাইয়ের হাথে সপে দিল ৷ কাঁচের ঝাড়বাতি , সুন্দর সাজানো বেশ বড় বাড়ি , জায়গা টা রাতের জন্য বোঝা যাচ্ছে না ৷ আমাকে একটা সাজানো সুন্দর বড়লোকেদের মতো বাথরুমে ঢুকিয়ে কমলা বাই বলল

Link | This entry was posted in Uncategorized. Bookmark the permalink.

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s